৬ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা আলিপুর আদালতে

জোনাকি পণ্ডিত: গড়িয়াহাট জোড়া খুনকাণ্ডে চার্জশিট পেশ। ধরা পড়েছে মূল পাণ্ডা ভিকি সহ ৬ অভিযুক্ত। এমনকী, সন্ধান মিলেছে খুনে ব্যবহৃত অস্ত্রটিরও। ৮৭ দিনের মধ্যেই ধৃতদের বিরুদ্ধে আলিপুর আদালতে চার্জশিট পেশ করল পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটে ২০২১, ১৭ ই অক্টোবর। সেদিন গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়া রোডের একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় ২টি মৃতদেহ। দোতলা বাড়ির একতলায় নিউটাউনের বাসিন্দা সুবীর চাকীর দেহ। আর তাঁরই গাড়ি চালক রবীন মণ্ডলের দেহ পাওয়া যায় দোতলায়। পরিবারের লোকেদের দাবি, কাঁকুলিয়া রোডের বাড়িটি বিক্রি চেষ্টা করছিলেন সুবীর। রবিবার কোনও ক্রেতাকে দেখানোর জন্য ওই বাড়িতে এসেছিলেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন গাড়ির চালকও। তবে খুন কিভাবে হলো? তদন্তে করে জানা যায়, নিহত সুবীর চাকি কাঁকুলিয়া রোডের বাড়িটি দেখভাল করতেন মিঠু হালদার নামে এক মহিলা। তার বাড়ি ডায়মন্ড হারবারে। প্রথমে ডায়মন্ড হারবার থানা, তারপর লালবাজারে নিয়ে ম্যারাথন জেরা করা হয় মিঠুকে। শেষপর্যন্ত গ্রেফতার করা হয় বাড়ির পরিচারিকা মিঠুকে।

 

 

তবে গড়িয়াহাট জোড়া খুনের পর মুম্বই পালিয়েছিল মূল অভিযুক্ত ভিকি ও তার বন্ধু শুভঙ্কর মণ্ডল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পুলিশ তাদের ঠিকই ধরে ফেলে। গত বছর নভেম্বরে মুম্বই থেকেই তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। কার্যত চিরুনি তল্লাশি চালায় পুলিশ অভিযুক্তের বাড়ি ও আশেপাশের এলাকায়। যদিও খুনের ব্যবহৃত ছুরিটি ঠিক কোথা থেকে পাওয়া গিয়েছে, তা জানা সম্ভব হয়নি।

 

 

 

close