ছত্রধর কাণ্ডে কঠোর হচ্ছে NIA,একের পর এক পদক্ষেপ

বিশ্বজিৎ দাস : রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক ছত্রধর মাহাতোর ২০০৯ সালে ঝাড়গ্রামের বাঁশতলায় রাজধানী এক্সপ্রেস হাইজ্যাকের ঘটনায় নাম জড়ায়। এনআইএ’র আধিকারিকেরা গতকাল ভোররাতে ঝাড়গ্রাম জেলার লালগড়ে ছত্রধর মাহাতোর বাড়িতে চড়াও হয়। সেখান থেকেই তাঁকে গ্রেফতার করে তুলে নিয়ে আসা হয় কলকাতায়।

পেশ করা হয় বাঙ্কশাল কোর্টে। সেখানেই বিচারক ছত্রধরকে ২ দিনের জন্য এনআইএ হেফাজতে পাঠান। এখন এই ঘটনার জেরেই এনআইএ রাজ্য পুলিশের দুই আধিকারিককে জেরা করতে চাইছে যাঁরা ওই ট্রেন হাইজ্যাকের ঘটনায় তদন্ত করেছিলেন।

এনআইএ’র ধারনা, ওই দুই তদন্তকারী আধিকারিক বিশেষ কোনও ব্যক্তিকে আড়াল করতে চাইছিলেন যিনি ওই ঘটনার পিছনে পর্দার আড়াল সব কাজ করেছিলেন। এনআইএ সূত্রে খবর, দুই রাজ্য পুলিশের আধিকারিককে তাঁরা জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাইছেন তাঁরা এখন ডিএসপি পদমর্যাদার আধিকারিক।

প্রসঙ্গত, এর আগেই এনআইএ এই ঘটনার তদন্তে ওই দুই আধিকারিককে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চেয়ে চিঠি দিলেও তার জবাব মেলেনি। তবে তারও আগে রাজধানী এক্সপ্রেস হাইজ্যাকের ঘটনার তিন তদন্তকারী অফিসারের মধ্যে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এনআইএ। তখন এই ২ জনকে জেরা করতে চেয়েও পাওয়া যায়নি। এনআইএ এখন নতুন করে যখন শাসক দলের হাতে আর পুলিশ প্রশাসন নেই তখনই তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাইছে। যাতে তাঁদের আসা কেউ ঠেকাতে না পারে।

close