শুভেন্দুর পর আরও এক মন্ত্রীর ক্ষোভ,বেকায়দায় শাসক দল

প্রাক্তন ক্যাবিনেট মন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ সহযোগী শুভেন্দু অধিকারীর মধ্যে সম্পর্ক খারাপ হওয়ার মধ্যে শনিবার পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন শাসক দলের (তৃণমূল কংগ্রেস) বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন যে, যারা ইয়েসম্যানশিপ ের আশ্রয় নেয় তারা প্রচুর পয়েন্ট স্কোর করছে।

দক্ষিণ কলকাতায় এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মন্ত্রী বলেন, এমনকি দুর্নীতিগ্রস্তরাও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রথম সারিতে রয়েছে।

“আপনি যদি ইয়েসম্যান হতে পারেন তাহলে আপনি উচ্চতর স্কোর পাবেন (পার্টিতে)। যেহেতু আমি এটা করতে পারি না এবং ভাল কে খারাপ এবং খারাপ হিসেবে বর্ণনা করতে পারি, তাই আমার স্কোর কম,”এমনটাই বলেন রাজিব। তিনি আরো অভিযোগ করেন যে যখন সৎ লোকেরা সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করার চেষ্টা করে, তখন তাদের আটকে রাখা হয়।
সরাসরি নাম না করে তৃণমূল নেতৃত্বকে কটাক্ষ করে মন্ত্রী বলেন, “যারা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কামরায় বসে আছে তারা এখন নেতৃত্বের পদে আছেন।

শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের শীতল সম্পর্ক সম্পর্কে তিনি বলেন, অধিকারী যদি দল ছেড়ে দেন, তাহলে তা নেতৃত্বের শূন্যতা সৃষ্টি করবে।

“দলের নেতাদের মধ্যে অভিযোগের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা উচিত,।এই বক্তব্যের পরেই রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে।

এর আগে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চারও হয়েছিলেন। জুলাই মাসে বন দপ্তরের এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, যদি তৃণমূল থেকে দুর্নীতি কে টেনে আনতে হয়, তাহলে শুধু ছোট নেতারাই নন, বড়বড়দেরও গ্রেফতার করতে হবে।

“শুধু ছোট ছোট নেতা ধরা কোন কাজে আসবে না যদি দুর্নীতিকে পার্টি থেকে বের করে দিতে হয়। বড় মাছও ধরে যেতে হবে,”।

তৃণমূল নেতৃত্ব রাজীবের মন্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। প্রবীণ তৃণমূল নেতা তথা নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, “রাজিব একজন পরিশ্রমী তরুণ নেতা। দলে কোন শূন্যতা নেই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবসময় আমাদের দেখাশোনা করেন। আসলে, কখনও কখনও মানুষ বিষণ্ণ হয়ে পড়ে।

close