“গেরুয়া পতাকাই জাতীয় পতাকা হবে” মন্তব্য বিজেপি নেতার!

জোনাকি পণ্ডিত: হিজাব বিতর্ক ঘিরে একেই দেশ উত্তাল। তারমধ্যে এবার কর্ণাটকের পঞ্চায়েত মন্ত্রী কে এস ঈশ্বরাপ্পার বিস্ফোরক মন্তব্য। তাঁর দাবি, আগামী দিনে তেরঙ্গার বদলে ভারতের জাতীয় পতাকা হবে গেরুয়া।ভবিষ্যতে লালকেল্লাতেও উড়তে পারে এই গেরুয়া পতাকা।

হিজাব বিতর্ক নিয়ে বিক্ষোভে কর্ণাটকের একটি কলেজে জাতীয় পতাকা নামিয়ে গেরুয়া নিশান উড়ায় কিছু হিন্দুত্ববাদী পড়ুয়া। যা ইতিমধ্যেই তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি গোটা দেশে। এরপর পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেয়। আর সেই পরিস্থিতি সামাল দিতে কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বাসবরাজ বোম্মাই সেই রাজ্যের স্কুল-কলেজগুলি দিন তিনেকের জন্য বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন।

লালকেল্লায় কি জাতীয় পতাকার জায়গায় গেরুয়া নিশান উড়তে পারে? এ প্রশ্নের উত্তরে কর্ণাটকের মন্ত্রী বলেন, “আজ হয়তো নয়, কিন্তু কোনও একদিন হতেই পারে।” তিনি আরও জানান, “কয়েকশো বছর আগে ভগবান রামচন্দ্রের রথে তো গেরুয়া পতাকাই উড়ত। তখন কি আমাদের দেশে তেরঙ্গা পতাকা ছিল? এখন হয়েছে। হয়তো ১০০, ২০০ বা ৫০০ বছর পর গেরুয়া পতাকা জাতীয় পতাকা হবে।”

পাশাপাশি কর্ণাটকের বিজেপির প্রাক্তন সভাপতির বক্তব্য,”হয়তো আজ নয়, কিন্তু কোনও এক দিন এই দেশে হিন্দুধর্ম বিরাজ করবেই। সেদিন আমরা লালকেল্লায় গেরুয়া পতাকা উত্তোলন করব।” যদিও পরে ঈশ্বরাপ্পা বলেছেন, “সংবিধান যেহেতু তেরঙ্গাকেই জাতীয় পতাকার সম্মান দিয়েছে, তাই সকলের সেটাকে সম্মান করা উচিৎ, যারা করবে না তারা দেশদ্রোহী।” জাতীয় পতাকাকে নিয়ে বিজেপি নেতার এই বিস্ফোরক মন্তব্য স্বভাবতই বিতর্কের আকার নিয়েছে। তাঁর এই কথার মাধ্যমেই স্পষ্ট যে বিজেপি দেশকে হিন্দু রাষ্ট্র করার লক্ষ্যে এগোচ্ছে। এমনটাই দাবি করেছেন। তবে কর্ণাটকের কলেজে জাতীয় পতাকার বদলে গেরুয়া নিশান ওড়ানোর বিষয়টি নিয়ে সংসদে সরব হয়েছে কংগ্রেস। এই বিষয় নিয়ে আলোচনার দাবি জানিয়ে সংসদে মুলতুবি প্রস্তাব দিয়েছেন কংগ্রেস সাংসদ মাণিকম ঠাকুর।

close