এশিয়ান বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপে রুপো মেরি কম-এর

ছয়বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন এম সি মেরি কম (৫১ কেজি) রবিবার এখানে কাজাখস্তানের নাজিম কিজাইবায়ের বিপক্ষে তীব্র ফাইনালে নামার পর এশিয়ান বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপে রৌপ্য পদক পান। মেরি কম ২-৩ হেরে যায়। এটি টুর্নামেন্টে তার সপ্তম পদক ছিল, প্রথমটি ছিল একটি স্বর্ণ যা ২০০৩ এসেছিল।তার চেয়ে ১১ বছরের ছোট প্রতিপক্ষের বিপক্ষে, ৩৮ বছর বয়সী মেরি কম একটি চিত্তাকর্ষক ভাবে শুরু করেছিলেন এবং তার তীক্ষ্ণ প্রতি-আক্রমণের উপর নির্ভর করে রাউন্ডটি জিতেছিলেন।

দ্বিতীয় রাউন্ডে তীব্রতা বেড়ে যায় এবং উভয় বক্সারই আক্রমণাত্মক অভিপ্রায় দেখায়। কাজাখ এই মুহুর্তে তার জ্যাবগুলি নিখুঁতভাবে অবতরণের সাথে সমতা মেটাচ্ছিলেন। মেরি কম শেষ তিন মিনিটে লড়াই করেছিলেন তবে বিচারকদের সম্মতি পাওয়ার জন্য এটি যথেষ্ট ছিল না। মণিপুরী কিংবদন্তি তার প্রচারণার জন্য ৫,০০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পুরস্কার ও জিতেছিলেন, অন্যদিকে কিজাইবে ১০,০০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দ্বারা সমৃদ্ধ ছিলেন। কিজাইবে দু’বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন এবং ছয়বারের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন।

সোমবার পুরুষদের ফাইনালে অমিত পাঙ্ঘাল (৫২ কেজি), শিব থাপা (৬৪ কেজি) এবং সঞ্জীত (৯১ কেজি) লড়াই করবেন। পাংহাল অলিম্পিক এবং উজবেকিস্তানের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন শাখোবিন্দিন জোইরভের বিরুদ্ধে স্কোয়ার অফ করবেন। এটি ২০১৯ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের পুনরাবৃত্তি হবে যেখানে ভারতীয়রা রুপো তে সন্তুষ্ট হতে হেরেছিল।

থাপা মঙ্গোলিয়ার বাতারসুখ চিনজোরিগের বিপক্ষে দাঁড়াবেন, যিনি এশিয়ান গেমসের রৌপ্যপদক বিজয়ী। সানজিৎ কাজাখ কিংবদন্তি ভাসিলি লেভিটের সাথে লড়াই করবেন, যিনি মহাদেশীয় শো-পিসে তার চতুর্থ সোনা তাড়া করছেন।

আরও আট জন ভারতীয়— অলিম্পিকগামী ত্রয়ী সিমরনজিৎ কৌর (৬০ কেজি), বিকাশ কৃষাণ (৬৯ কেজি), এবং লোভলিনা বোরগোহাইন (৬৯ কেজি), এবং জয়সমিন (৫৭ কেজি), সাক্ষী চৌধুরী (৬৪ কেজি), মনিকা (৪৮ কেজি), সাউইতি (৮১ কেজি) এবং ভারিন্দর সিং (৬০ কেজি) সেমিফাইনালে হারের পর ব্রোঞ্জ পদক নিশ্চিত করেন। তারা তাদের তৃতীয় স্থান অর্জনের জন্য প্রত্যেকে ২,৫০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পুরস্কার অর্থও পেয়েছে।

close