ময়নাগুড়ির রেল দুর্ঘটনায় নয়া মোড়

জোনাকি পন্ডিত: ইঞ্জিনের ত্রুটির কারণেই বেলাইন হয়েছে বিকানের এক্সপ্রেস। শুক্রবার দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার পর এমনই দাবি করেছেন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব৷

 

প্রাথমিকভাবে রেলের আধিকারিকদের অনুমান, ট্রাকশন মোটরস খুলে পড়ে যায়। এর কাজ হচ্ছে হুইল-অ্যাক্সেল পরিচালনা করা। সেটা করতে গিয়েই বাধা আসে। ভেঙে পড়েছে এটা বুঝতে পারেন লোকো পাইলট ও সহকারী লোকো পাইলট। তাঁরা সঙ্গে-সঙ্গেই প্রয়োগ করেন এমারজেন্সি ব্রেক। কিন্তু ট্রেনের যথেষ্ট গতি ছিল। আর ICF কোচ হওয়ার জন্যেই একটি কোচের উপরে অন্য কোচ উঠে পড়ে। তার জেরেই এই দূর্ঘটনা ও তার এই বিরাট অভিঘাত।

 

শুক্রবার সকালেই জলপাইগুড়ির দোমহনীতে পৌঁছন রেলমন্ত্রী৷ দুর্ঘটনার পর থেকেই মনে করা হচ্ছিল, সম্ভবত রেল লাইনে ফাটলের মতো কোনও সমস্যা ছিল। সেই কারণেই এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছে৷ অন্যদিকে যাত্রীদের একাংশের দাবি, অস্বাভাবিক গতিতে ছুটছিল ট্রেনটি৷ কিন্তু শুক্রবার রেলকর্তাদের নিয়ে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর রেলমন্ত্রী জানান, ‘আমি নির্দিষ্ট ভাবে বলছি, এই দুর্ঘটনার সঙ্গে রেল লাইনের ত্রুটি বা অতিরিক্ত গতির কোনও সম্পর্ক ছিল না৷ যেটুকু বোঝা যাচ্ছে, ইঞ্জিনের কোনও ত্রুটির কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে৷’

 

 

 

close