তৃণমূলে ‘এক নেতা, এক পদ’ নীতি বাস্তবায়নের ভাবনা

তৃণমূল কংগ্রেস দলে ‘এক নেতা, এক পদ’ নীতি বাস্তবায়নের কথা ভাবছে। ৫ জুন অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া তৃণমূল সাংগঠনিক বৈঠকে এ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে আলোচনা করা যেতে পারে। মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি ছাড়াও দলের যুব সংগঠনের সভাপতি অভিষেক ব্যানার্জি, রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি, সাধারণ সম্পাদক পার্থ চ্যাটার্জি সহ সমস্ত প্রবীণ নেতারা বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন।

প্রশান্ত কিশোর, যিনি সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনে দলের নির্বাচনী কৌশলী ছিলেন, তিনিও উপস্থিত থাকবেন।দলীয় সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, দলের সকল সাংসদ, বিধায়ক, মন্ত্রী, চেয়ারম্যান ও পৌর সংস্থার প্রশাসকদেরও বৈঠকে যোগ দিতে বলা হয়েছে। দলীয় সূত্র জানিয়েছে যে তৃণমূল জেলা সভাপতি যাকে এবার মন্ত্রী করা হয়েছে তাকে জেলা সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া যেতে পারে এবং তাদের জায়গায় নতুন লোকদের এই দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে।

বৈঠকে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় তৃণমূল চেয়ারম্যান পদ থেকে ও শিশির অধিকারীকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে।বিধানসভা নির্বাচনের আগে শিশির বিজেপি-তে যোগ দিয়েছিলেন। অরূপ রায়কে হাওড়া জেলা সংগঠনের চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া যেতে পারে। অরূপ রায় বর্তমানে রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী এবং হাওড়া পৌর নিগমের প্রশাসক।

কৃষি বিপণন মন্ত্রী বিপ্লব মিত্রকে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া যেতে পারে। একইভাবে, দলের বিভিন্ন পদে থাকা বেশ কয়েকজন মন্ত্রীকে সেই পদ গুলি থেকে অব্যাহতি দেওয়া যেতে পারে। দলীয় সূত্রে খবর, দলে যাতে ভিন্নমত ও অসন্তোষের অনুভূতি না হয়, সেজন্য তৃণমূল এই নীতিতে ধীরে ধীরে এগোতে চায়। সাংগঠনিক বৈঠকে, যারা দলে ফিরে আসার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তাদের ফিরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্তও নেওয়া যেতে পারে।

close