জানুয়ারিতেই বড়োসড়ো হামলা চালাতে চলেছে রাশিয়া!

জোনাকি পণ্ডিত: ইউক্রেনে হামলার আশঙ্খা! দ্রুত হামলা চালাতে পারে রাশিয়া। তাই আগাম সর্তকতা অবলম্বন করে দেশটির দূতাবাস থেকে কর্মীদের সরিয়ে নিচ্ছে আমেরিকা। একইসঙ্গে এই পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই সকল নাগরিকদের সেই দেশে সফর না করার উপদেশ দিয়েছে কিয়েভের মার্কিন দূতাবাস।

 

রাশিয়া বিগত কয়েকমাস ধরেই পূর্ব ইউরোপে ন্যাটো জোটের প্রভাব বিস্তার নিয়ে আপত্তি জানিয়ে আসছে। সম্প্রতি, আমেরিকার সামরিক গোষ্ঠীটিতে কিয়েভের যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা শুরু হতেই ইউক্রেন সীমান্তে দ্রুত সেনা মোতায়েন করেছে মস্কো। স্যাটেলাইট মাধ্যমে পাওয়া ছবি থেকে মিলেছে আসন্ন যুদ্ধের ইঙ্গিত! তবে এই কঠিন পরিস্থিতিতে কিয়েভের পাশে দাঁড়িয়েছে ব্রিটেন ও কানাডা। রুশ বাহিনীর সঙ্গে লড়তে ইউক্রেনের হাতে অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল তুলে দিয়েছে ব্রিটেন। এছাড়াও ইউক্রেনের ফৌজকে আরও শক্তিশালী করতে বিশেষ কমান্ডো বাহিনীও পাঠিয়েছে কানাডা। রবিবার ডামাডোলে মার্কিন বিদেশ দপ্তর জানিয়েছে, ‘রুশ ফৌজের হামলার আশঙ্কার জেরেই কিয়েভের দূতাবাসে কর্মী সংখ্যা কমিয়ে আনা হচ্ছে। শুধুমাত্র অত্যন্ত জরুরি কাজের সঙ্গে যুক্ত কর্মীরাই সেখানে থাকবেন।’

 

উল্লেখ্য, রাশিয়া অবশ্য দাবি করেছে যে ন্যাটো গোষ্ঠীতে যেন ইউক্রেনকে অন্তর্ভুক্ত না করা হয়। যদি এর অন্যথা হয় তাহলে সামরিক পদক্ষেপের হুমকিও দিয়েছে মস্কো।পরিস্থিতি সামাল দিতে ইউক্রেনের মাটি পা রেখেছে ৩০ জন ব্রিটিশ কমান্ডো বাহিনী। একইসঙ্গে প্রায় ২ হাজার ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী হাতিয়ার ও পাঠিয়েছে লন্ডন। তবে প্রয়োজনে আরও হাতিয়ার পাঠান হবে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা সচিব বেন ওয়ালেস।

close