আদি ও নব্য বিজেপির লড়াইয়ে বেসামাল গেরুয়া শিবির

বিশ্বজিৎ দাস : গলসীর বিজেপি প্রার্থী তপন বাগদীকে পূর্ব ঘোষণা মতই নিজের মনোনয়নপত্র জমা দিতে এসেও মাঝপথেই ফিরে যেতে হল।দলীয় সমর্থকদের সঙ্গে সবরকমের প্রস্তুতি নিয়ে তিনি চলেও এসেছিলেন সোমবার দুপুরে বর্ধমানের কালেক্টরেট ভবনে। তিনি যখন কালেক্টরেট ভবনের মূল গেট পেরিয়ে মূল ভবনের গেটে এসে দাঁড়ালেন ঠিক তখনই তাঁর মোবাইল ফোন বেজে ওঠে। অন্য প্রান্ত থেকে ফোনে তাঁর স্ত্রী জানালেন, টিভিতে গলসীর প্রার্থী বদলে দেবার খবর দেখাচ্ছে। তপন বাগ্দীর বদলে বিকাশ বিশ্বাসকে প্রার্থী করেছে বিজেপি।

তপন বাগদী স্ত্রীর এই কথা শুনেই হতাশায় ভেঙে পড়েন। কালেক্টরেট ভবনের গেটে এক পা দিয়েছিলেন। আস্তে আস্তে সেই পা নামিয়ে নেন। এরপর দলের দুই প্রস্তাবককে ঘটনার কথা জানিয়ে দ্রুত কালেক্টরেট ভবন ছেড়ে বেড়িয়ে যান তিনি। যেতে যেতে বলে গেলেন, তাঁর বদলে অন্য কাউকে প্রার্থী করা হয়েছে। এমনটা হবার তো কথা ছিল না। তাই তিনি ফিরে যাচ্ছেন দলীয় কর্মীদের নিয়ে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

আদি বিজেপি ও নব্য বিজেপির সংঘাতের সম্ভাবনা দ্বিগুণ বেড়ে গেল তপন বাগদীর প্রার্থী বদল হবার এই ঘটনা ছড়িয়ে পড়তেই। উল্লেখ্য, সোমবারই বিজেপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে প্রেস বিবৃতি দিয়ে গলসীর এই প্রার্থী বদলের কথা জানানো হয়েছে। তপন বাগ্দীর পরিবর্তে প্রার্থী করা হয়েছে কাঁকসার বাসিন্দা পেশায় শিক্ষক বিকাশ বিশ্বাসকে। দীর্ঘদিন ধরেই তিনি বিজেপির সঙ্গে যুক্ত। এমনকি তিনি এই কয়দিনে তপন বাগ্দীর সমর্থনে প্রচারাভিযানও করেছেন।

তাঁকে প্রার্থী করায় বিকাশ বিশ্বাস জানিয়েছেন, তিনি জানেনই না তাঁকে প্রার্থী করা হবে বলে।এটা তাঁর কাছে অনভিপ্রেত।তপন বাগদীর বদলে তাঁকে প্রার্থী করায় বিজেপির শিক্ষক সেলের এই নেতা জানিয়েছেন, এব্যাপারে তপন বাগদীর সঙ্গে আলোচনা করেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন। এদিকে, গলসীর বিজেপি প্রার্থীকে বদল করার পরই বিজেপির অন্তর্দ্বন্দ্ব আরও তীব্র আকার নিল। উল্লেখ্য, গত শুক্রবারই তপন বাগ্দী সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়ে ছিলেন বিজেপির সদর কার্যালয়ে তাঁকে ডেকে পাঠিয়ে বর্ধমান দুর্গাপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ সুরেন্দ্রজিত সিংহ অহলুবালিয়া এবং জেলা সভাপতি অভিজিত তা তাঁকে প্রার্থী হিসাবে সরে দাঁড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

close