রাজ্যের ১০৮ পুরসভায় আজ ভাগ্য নির্ধারন!

জোনাকি পণ্ডিত: রাজ্যের ১০৮ পুরসভা নির্বাচনের গণনা শুরু হয়ে গিয়েছে। ১০৮ পুরসভার গণনা করা হবে মোট ১০৭টি জায়গায়। গণনাকেন্দ্রগুলিতে বিশেষ নিরাপত্তা দিয়ে ঘেরা হয়েছে। ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকছে এই কেন্দ্রগুলিতে। প্রত্যেকটি গণনা কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে জারী রয়েছে ১৪৪ ধার। গণনাকেন্দ্রের বাইরে প্রথম স্তরে রয়েছে লাঠিধারী পুলিশ থেকে শুরু করে কমব্যাট ফোর্স। দ্বিতীয় স্তরে প্রবেশে শুধুমাত্র সাদা কাগজ ও পেন ছাড়া কিছুই রাখা যাবে না। সেইসঙ্গে রয়েছে সংবাদ মাধ্যমের জন্যও আলাদা ব্যবস্থা। তৃতীয় স্তরের একপাশে স্ট্রং রুম। এখানে রয়েছে সব ইভিএম। অন্যদিকে তৈরি হয়েছে মূল গণনা কেন্দ্র।

ভোটগণনা প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ বলেন যে রেজাল্ট হওয়ার কথা ছিল সেটা হবে না। ভয়ের পরিবেশে নির্বাচন হয়েছে তাই রেজাল্ট ভালো হবেনা। তবে এরই মধ্যে মাথাভাঙ্গায় ১২ টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৩ টি আসনে জয়ী তৃনমুল কংগ্রেস। এদিকে কড়া নিরাপত্তার মধ্যেই শুরু কালনা পৌরসভা নির্বাচনের গণনা। দক্ষিণ ২৪ পরগনা বজ বজ পৌরসভা ও মহেশতলা পৌরসভার ভোট গণনার প্রস্তুতি চলছে সকাল থেকেই। বালুরঘাট হাই স্কুলেই হবে বালুঘাট পৌরসভার ভোট গণনা। অন্যদিকে জেলার আরো একটি পৌরসভা গঙ্গারামপুরের ভোট গণনা শুরু হবে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়ামে। জলপাইগুড়ি ও ময়নাগুড়ি পুরসভা গণনা কেন্দ্র পিডি ওমেন্স কলেজ। মালবাজার পুরসভার কাউন্টিং হবে মাল আদর্শ বিদ্যাভবনে। ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা মধ্য দিয়ে শুরু হতে চলেছে ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলের ভোট গণনা। বর্ধমান পৌরসভার ভোট গণনা করা হবে ইউআইটি কলেজে। মালবাজার পুরসভার কাউন্টিং শুরু হবে মাল আদর্শ বিদ্যাভবনে।

তবে মোট প্রার্থী সংখ্যার মধ্যে ২,২৫৮ জন টিএমসি, ২,০২১ জন বিজেপি, ১,৫৮৮ জন বাম, কংগ্রেসের ৯৬৫, ৮৪৩ জন নির্দল, ১১৭ ফরোয়ার্ড ব্লক, ৭৬ জন আরএসপি, ৩০ জন বিএসপি, ৯৯ জন সিপিআই, ২জন এনসিপি এবং অন্যান্য ১৫৮ জন প্রার্থী।তবে এগুলোর মধ্যে মোট ১০৩টি ওয়ার্ডে ভোটগ্রহণ করা হয়নি কারণ টিএমসি এই আসনগুলির বেশিরভাগই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছে।

 

 

 

close