বাংলা নির্বাচন ঘিরে কেন চুপ আসাদউদ্দিন ওয়েইসি?

বিহার ও বাংলার সীমানা পরস্পর সংযুক্ত। সংযুক্ত সীমানা হওয়া মানে নড়াচড়া করা সহজ। এই সহজ আন্দোলনকে রাজনৈতিক অস্ত্র ের পরিণত করেছে এআইএমআইএম প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়েইসি। আসাদউদ্দিন ওয়েইসি, যিনি সিমানচল 40 আসন জয়ের উদ্দেশ্য নিয়ে বিহার নির্বাচনে অবতরণ করেন, নির্বাচনী প্রচারণায় ঘোষণা করেন যে বিহারে পরিবর্তন হবে।

বিহারে, তার দল একটি নতুন ইতিহাস তৈরি করবে এবং কেন্দ্র থেকে বিজেপিকে উৎখাত করার জন্য একটি স্ক্রিপ্ট লেখা হবে। ওওয়াইসির দল বিহার নির্বাচনে পাঁচটি আসন জিতেছে। আজ আসাদউদ্দিন ওয়েইসি বাংলায় নীরব।

বিহারে আসাদউদ্দিন ওয়েইসি বলতেন যে এখান থেকে পরিবর্তনের চাকা বাংলার চারপাশে ঘোরাফেরা করবে এবং বাংলার নির্বাচনের ফলাফল ২০২৪ সালে কেন্দ্রের মোদী সরকারের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। বাংলার নির্বাচনের কথা বলতে গেলে, প্রথম দফার ভোট ২৭ মার্চ। নির্বাচনী প্রচারে তৃণমূল, বিজেপি, বাম-কংগ্রেস জোট শক্তি বাড়িয়েছে। প্রভাত খাবার কলকাতার সিনিয়র স্থানীয় সম্পাদক কৌশল কিশোর ত্রিবেদীর মতে, ওওয়াইসি গত কয়েক মাসে দুইবার বাংলা ভ্রমণ করেছেন। দাবি করেন যে তার দল তৃণমূল কংগ্রেসের ভোটব্যাঙ্ক চুরি করতে সক্ষম। বাংলার নির্বাচনে প্রচারণা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

এআইএমআইএম প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়েইসি পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে নীরব। আসাদউদ্দিন ওয়েইসি বাংলার যুদ্ধে কোথাও নেই। আসাদউদ্দিন ওয়েইসি থেকে মুসলিম ভোটারদের দূরত্ব
পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ৩০ শতাংশ মুসলিম ভোটারের উপর নজর রেখে আসাদউদ্দিন ওয়েইসিকে বেশ কয়েকবার তৃণমূল থেকে বিজেপি এবং কংগ্রেসের বড় ক্ষতি নিয়ে কথা বলতে দেখা গেছে। যাইহোক, জামিরুল হাসান, যিনি পশ্চিমবঙ্গে এআইএমআইএম একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন, ওওয়াইসি থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়।

তাঁর দলের অনেক নেতা চলে গেলেন। অন্যদিকে, জামিরুল হাসান পশ্চিমবঙ্গে ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লীগ গড়ে তোলার জন্য কাজ করছেন। ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লীগ, 1994 সাল পর্যন্ত মুসলিম লীগ সঙ্গে চলমান, পশ্চিমবঙ্গে তার নিজস্ব অস্তিত্ব খুঁজছে। একই সময়ে, ফুরফুরা শরিফের শক্তিশালী পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকির সাথে ওওয়াইসির বন্ধুত্ব দলের অনেক নেতাকে ক্ষুব্ধ করে তুলেছে।

বাম-কংগ্রেসের প্রতি আব্বাসের ভালোবাসা, ওওয়াইসি চুপ করে
পশ্চিমবঙ্গে পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকির আইএসএফ (ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট) বাম ও কংগ্রেসের সঙ্গে জোট রয়েছে। আব্বাস সিদ্দিকির সাথে আসাদউদ্দিন ওয়েইসির বন্ধুত্ব এবং আইএসএফ-এর বাম-কংগ্রেসের সাথে সিদ্দিকির জোট বিতর্ক বাড়িয়ে দিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে, ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লীগ প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। মনে করা হচ্ছে ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লীগ নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসকে সমর্থন করবে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলায় ওওয়াইসির অনুপস্থিতিতে তৃণমূল সরাসরি উপকৃত হবে। বাংলার নির্বাচনে হায়দ্রাবাদ সংযোগ ‘অনুপস্থিত’
আসলে পশ্চিমবঙ্গের বিপুল সংখ্যক মুসলমান বাংলায় কথা বলে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুসলিম প্রেমও কারও কাছে লুকানো নেই। আপনি যদি ওওয়াইসি এবং তার দলের দিকে তাকান, তাহলে আসাদউদ্দিন ওয়েইসির পক্ষে বাংলার নির্বাচনে এসে হায়দ্রাবাদ থেকে মুসলিম ভোটারদের প্রভাবিত করা সহজ নয়। বাংলার নির্বাচনের আগে আসাদউদ্দিন ওয়েইসি এবং পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকির কথোপকথনের খবরও প্রকাশিত হয়। এই উপলক্ষে আব্বাস সিদ্দিকী প্রতিশোধ নেন এবং আসাদউদ্দিন ওয়েইসিকে নির্বাচনে চুপ থাকতে হয়।

close